রাত ১২:৩৫,শুক্রবার, ১৫ই নভেম্বর, ২০১৯ , ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬
সংবাদ শিরোনাম :

তৃণমূলের ভোটে শাজাহান পারভেজ হোসেনপুর উপজেলা চেয়ারম্যান

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

নির্বাচন কমিশনের তথ্যমতে আগামী ৩১ মার্চ কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে উপজেলা ভিত্তিক চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী নাম চুড়ান্ত করে কেন্দ্রে পাঠাতে নির্দেশনা রয়েছে কেন্দ্রিয় আওয়ামীলীগের। সে লক্ষে একাধিক পক্ষের মধ্যে সমঝোতা না হওয়ায় উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার দলীয় কাউন্সিল ও সদস্যদের গোপন ব্যালটের মাধ্যমে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী চুড়ান্ত করা হয়।

ওই তৃণমূলের নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল ১৭৬ জন। প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী ছিলো ৩ জন। এদের মধ্যে ময়মনসিংহ মহানগর আওযামীলীগের সহ-সভাপতি ও কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মোঃ শাজাহান পারভেজ ৬২ ভোট পেয়ে প্রথম হয়ে দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোনীত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও হোসেনপুর সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি এম এ হালিম ৬০ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় ও হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও শাহেদল ইউপি চেয়ারম্যান শাহ্ মাহবুবুল হক ৫৪ ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থান লাভ করেন।

বৃহস্পতিবার (৩১ জানুয়ারি) স্থানীয় আসাদুজ্জামান খান অডিটরিয়ামে আয়োজিত দিনব্যাপী ওই জমজমাট নির্বাচনটি পরিচালনা করেন কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট কামরুল হাসান শাজাহান ও সাধারন সম্পাদক এডভোকেট এম এ আফজাল।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, কিশোরগঞ্জ-১ আসনের আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও প্রয়াত সৈয়দ আশরাফের ছোট বোন ডাঃ সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি,বিসিবির পরিচালক সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু, হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল ইসলাম নুরু মিয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও সিদলা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ কামরুজ্জামান কাঞ্চন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা সারোয়ার, অধ্যক্ষ নাজিম উদ্দিন, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান মোবারিছ,সাধারন সম্পাদক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মোবারেছ প্রমূখসহ আওয়ামীলীগ ও বিভিন্ন অংগসংগঠনের শতশত নেতাকর্মী ও সমর্থক।

উল্লেখ্য, হোসেনপুর উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন লাভের আশায় ৪ জন প্রার্থী আনুষ্ঠানিক নাম ঘোষনা করলেও শেষ পর্যায়ে হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জহিরুল ইসলাম নুরু মিয়া নির্বাচন প্রক্রিয়া থেকে সরে দাড়ালে অপর তিন প্রার্থীর মধ্যে তুমূল প্রতিদ্বন্ধিতা হয়। এ বিষয়টি এখন সারা উপজেলায় আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিনত হয়েছে। লোকজন বলাবলি করছে স্বচ্ছ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ভোটের আগে এমন নির্বাচন সাধারন ভোটারদের মাঝে বিরল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলে ধারনা রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

দৈনিক বাংলা পত্রিকা / রফিকুল ইসলাম খান

 
Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
Inline
Inline