সন্ধ্যা ৬:২৩,সোমবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং , ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :

গফরগাঁওয়ে ‘গোলন্দাজ মিথ’

তাঁর মৃত্যুর পর কেটে গিয়েছে প্রায় এক যুগ। পুরাতন ব্রহ্মপুত্র দিয়ে বয়ে গিয়েছে অনেক পানি। কিন্ত গফরগাঁওয়ে এখনও আলতাফ গোলন্দাজর অবেগই ভোটের রাজনীতির নিউক্লিয়াস। আলতাফ হোসেন গোলন্দাজ নেই। তবু তিনিই এখনও আছেন গফরগাঁওয়ের রাজনীতি জুড়ে।
গফরগাঁওয়ের মাটি নৌকার ঘাটি, কথাটি এ অঞ্চলের মানুষের মুখে মুখে প্রবাদের মত শোনা যায়। ময়মনসিংহ-১০ গফরগাঁও আসনের সাবেক এমপি প্রয়াত আলতাফ হোসেন গোলন্দাজের ক্যারিশম্যাটিক নেতৃত্বে এই আসনটি আওয়ামীলীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। বর্তমানে এই আসনের এমপি আলতাফ হোসেন গোলন্দাজের পুত্র ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল ।
১৯৯০ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ৫ টি জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও ২ টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন মোট ৭টি নির্বাচনের মধ্যে ৬ টি নির্বাচনেই বিজয়ী হয় গোলন্দাজ পরিবার থেকেই। গত ২০০৯ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন ক্যাপ্টেন (অবঃ) গিয়াস উদ্দিন আহাম্মেদ। গফরগাঁওয়ের রাজনীতিতে নবাগত প্রার্থী ক্যাপ্টেন (অব.) গিয়াসউদ্দিন নির্বাচনে বিজয়ী করতে গোলন্দাজ পরিবারের ছিল বিশেষ ভূমিকা। ওই বছর অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বর্তমান এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল। ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পূনরায় গোলন্দাজ পরিবারের সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলকে নৌকার মনোনয়ন দেওয়া হয়। রেকর্ড সংখ্যক ভোট পেয়ে ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল এমপি নির্বাচিত হয়।
আলতাফ হোসেন গোলন্দাজ ২০০৭ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারী ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুর প্রায় ১২ বছর পরও তাঁর অশরীরী উপস্থিতি গফরগাঁওয়ের ভোটের রাজনীতিতে আজও উজ্জ্বল। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গফরগাঁও জুড়ে ‘নৌকা হাওয়া’র পাশাপাশি ‘গোলন্দাজ বাতাসও দিব্যি টের পাওয়া যায়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রি শেখ হাসিনার পাশাপাশি আলতাফ হোসেন গোলন্দাজের নামে নৌকা মার্কায় ভোট প্রার্থনা করা হচ্ছে। ‘খাঁটি সোনার খাঁটি তাজ,গফরগাঁওয়ের গোলন্দাজ’ উপজেলার আওয়ামীলীগ দলীয় নেতাকর্মীদের একটি জনপ্রিয় শ্লোগান। আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পক্ষ-প্রতিপক্ষের প্রচারে বার বার ফিরে আসছে আলতাফ হোসেন গোলন্দাজের কথাই। প্রয়াত এই আওয়ামীলীগ দলীয় নেতার উত্তরাধিকার বর্তমান এমপি ফাহমী গোলন্দাজ স্বাভাবিক ভাবেই ‘গোলন্দাজ মিথ’কে আকঁড়ে ধরে, ময়মনসিংহ-১০, গফরগাঁও আসনে গত ৫ বছরে হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মযজ্ঞকে কাজে লাগিয়ে দলীয় টিকিট নিয়ে নির্বাচনী বৈতরনী পার হতে চেষ্টা করছে । আবার শাসক দল আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী কমপক্ষে আরো ডজন খানেক নেতা চাইছে ‘গোলন্দাজ উত্তরাধিকার’ থেকে দলকে বাইরে আনা। এদিকে আওয়ামীলীগের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপিও চাইছে গফরগাঁওয়ের দীর্ঘদিনের ‘গোলন্দাজ মিথ’ ভেঙে রাজনীতি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিতে। তাদের লক্ষ্য হল গফরগাঁওয়ের রাজনীতি থেকে গোলন্দাজ প্রভাব মুছে ফেলা। সব মিলিয়ে গফরগাঁওয়ে এবারও ভোটের লড়াইয়ে জমজমাট ‘গোলন্দাজ’ ইস্যু।
পৌর মেয়র এসএম ইকবাল হোসেন সুমন বলেন, গফরগাঁও পৌর শহরে স্কুুল,কলেজ,মসজিদ,মাদ্রাসা স্থাপনে যে সম্পদ দান করেছেন, তার বাজার মূল্য শত কোটি টাকা । তাই পৌরবাসীর গভীর ভালবাসা গোলন্দাজ পরিবারের প্রতি ।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফ উদ্দিন বাদল বলেন, আলতাফ হোসেন গোলন্দাজ নেই। কিংবদন্তীতূল্য সততা, মানুষের প্রতি ভালবাসা ও তাঁর উন্নয়নের ছবি আছে গফরগাঁওবাসীর মনে, সেই ছবিরই ছায়া দীর্ঘ হয়ে আছে গফরগাঁও উপজেলায়। এ কারনেই ‘গোলন্দাজ’ পরিবারকে নিয়ে ভোটের রাজনীতিতে এত আলোচনা।
স্থানীয় এমপি ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল বলেন, আমার পিতা আলতাফ হোসেন গোলন্দাজ আমার রাজনীতির প্রেরনা । জননেত্রী শেখ হাসিনার অতি প্রিয়, অতি বিশ^স্থ আলতাফ হোসেন গোলন্দাজ এত কাজ করে গিয়েছেন, তাঁর নেতৃত্বে গফরগাঁওবাসী এত শান্তিতে-স্বস্থিতে ছিল , মানুষ তাঁকে ভুলতে পারবে না। 

Express Your Reaction
Like
Love
Haha
Wow
Sad
Angry
শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।